1. bdfocas24@gmail.com : newsroom :
  2. arifahok27@gmail.com : Alifa hok : Alifa hok
  3. newsgopalpur@gmail.com : Rokon zzaman : Rokon zzaman
  4. akmpalash75@gmail.com : Shamsuzzoha Palash : Shamsuzzoha Palash
করোনা ভ্যাকসিনের পার্শ্বপ্রতিক্রি আছে তবে বড় সমস্যা হবে না: স্বাস্থ্যমন্ত্রী - www.bdfocas24.com
বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ০৫:৩৯ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
ভূমিকম্পে কেঁপে উঠলো সারাদেশে বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম মহাসড়কের অন্তত ১৫ কিলোমিটার তীব্র যানজট টিকেটিং এজেন্সি টুয়েন্টিফোর টিকেটি ডটকমের পরিচালক গ্রেপ্তার মালিকানা নিলেও, নগদের বড় অংকের ঋণের দায়ভার নেবে না ডাক বিভাগ চুয়াডাঙ্গায় একদিনে ছয় ওসির রদবদল পলাশবাড়ীর কিশোরগাড়ী ইউপি চেয়ারম্যান রিন্টুসহ ৬ জুয়াড়িকে আটক করেছে পুলিশ পলাশবাড়ীতে সড়কের পাশে ড্রেন নির্মাণে বৈষম্যের স্বীকার হয়ে অর্ধশতাধিক ব্যবসায়ী নিঃস্ব জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রীর সাথে সৌজন্যে সাক্ষাৎ করলেন মেহেরপুর সদর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মোমিনুল ইসলাম পুলিশ সুপার জাহিদুল ইসলামের নির্দেশে অচল বৃদ্ধের বয়স্ক ভাতার টাকা উদ্ধার পুলিশ সুপারের মধ্যস্থতায় অবুঝ শিশুকন্যা নুসরাত ফিরে পেলো তার বাবা-মাকে

করোনা ভ্যাকসিনের পার্শ্বপ্রতিক্রি আছে তবে বড় সমস্যা হবে না: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক :
  • আপডেট টাইম: মঙ্গলবার, ১৯ জানুয়ারি, ২০২১
  • ১৯৯ বার দেখা

করোনার ভ্যাকসিনে পার্শ্বপ্রতি_ক্রিয়া আছে শিকার করে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেন এতে বড় কোনও সমস্যা হবে না। তিনি বলেন, পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে করোনার ভ্যাকসিনে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। তবে আমরা চেষ্টা করব আমাদের দেশ যাতে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া না দেখা দেয়।

সোমবার রাজধানীর হোটেল ইন্টার কন্টিনেন্টালে ‘কোভিড-১৯ স্বাস্থ্য বুলেটিন-২০২০’ মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে মন্ত্রী এ কথা বলেন তিনি।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, যেকোনো ওষুধে সাইড ইফেক্ট থাকতে পারে। আমরা একটি ওষুধ গ্রহণ করলেও সেটার গায়ে লেখা থাকে কী কী পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া থাকতে পারে। আবার নাও হতে পারে। বিভিন্ন দেশে ভ্যাকসিনে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হয়েছে। অ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাকসিনেও হয়েছে। ভ্যাকসিনের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া যেন না হয় সেদিকে আমাদের গুরুত্ব থাকবে।

তিনি বলেন, স্বাস্থ্য বুলেটিন বাংলাদেশে করোনা মোকাবিলার দলিল। যেখানে গত নয় মাসের করোনা মোকাবিলার তথ্য তুলে ধরা হয়েছে। কোভিড বারে বারে আসবে না। এই ইতিহাস তুলে ধরা দরকার। আগামী প্রজন্ম শিক্ষা নিতে পারবে, কীভাবে একটা মহামারি মোকাবিলা করা যায়। আমরা বুঝতে পারব, কে আমাদের বন্ধু, কে আমাদের শত্রু।

এর আগে রাজধানীর সেগুনবাগিচায় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি-ডিআরইউ’র নসরুল হামিদ মিলনায়তনে ‘মিট দা রিপোর্টার্স’ অনুষ্ঠানে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, সরকার ভ্যাকসিন দেওয়ার সামগ্রিক প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে। টিকা বিতরণে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার গাইড লাইন অনুসরণ করা হবে। প্রথমে ফ্রন্ট লাইনার চিকিৎসক-নার্সরা টিকা পাবেন। এ ছাড়া বয়স্ক ও গণমাধ্যমকর্মীরা অগ্রাধিকার পাবেন। একই সঙ্গে ডিআরইউ‘র সকল সদস্যরাও ভ্যাকসিন পাবেন।

আরও পড়ুনঃ ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু আরো ১৬

আগামী ২৫ জানুয়ারি দেশে টিকা আসতে পারে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট থেকে প্রথম দফায় অক্সফোর্ড করোনা ভ্যাকসিনের ৫০ হাজার ডোজ দেশে আসবে। এ অবস্থায় সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। ভ্যাকসিন দেয়ার জন্য ঢাকায় তিনশ’র মতো টিকাদান কেন্দ্র এবং ৪২ হাজার কর্মীকে প্রশিক্ষণ দিয়ে প্রস্তুত রাখা হয়েছে। টিকা সংরক্ষণে ইউনিসেফের মাধ্যমে ফ্রিজ আনার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

স্বাস্থ্য বুলেটিন নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব আব্দুল মান্নান। তিনি বলেন, আজ যে বুলেটিন তৈরি করা হয়েছে এটা আরও আপডেট করা যেত। করোনাভাইরাস নিয়ে প্রতিনিয়ত তথ্য আপডেট হচ্ছে। কিন্তু ডিসেম্বর পর্যন্ত অনেক তথ্য ছিল। যা এই বুলেটিনে সংযুক্ত করা হয়নি। গ্যাভি কভেক্সের সঙ্গে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কথা বলেছিলেন জুমে। ৩ মিনিট প্রধানমন্ত্রী অংশগ্রহণ করেছিলেন জুলাই-আগস্ট মাসে। সেই তথ্য এখানে আসেনি। পরবর্তীতে এগুলোকে পুনরায় রিভাইস করে বুলেটিন প্রকাশের দাবি জানান।

 

স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ (স্বাচিপ) সভাপতি ও কোভিড-১৯ বিষয়ক জাতীয় পরামর্শক কমিটির সদস্য অধ্যাপক ডা. ইকবাল আর্সলান বলেন, ফাইজারের ভ্যাকসিনের পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া নিয়ে গণমাধ্যমের প্রকাশিত খবর ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নেতিবাচক আলোচনার কারণে মানুষের মধ্যে একটি বিরূপ প্রতিক্রিয়া তৈরি হচ্ছে। এর অবসান ঘটাতে গণমাধ্যমকর্মীরা ভূমিকা রাখতে পারেন। যেভাবে তারা করোনার ব্যাপারে জনসচেতনতা সৃষ্টি করেছিলেন। তাহলে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় এবং স্বাস্থ্য বিভাগ এ ব্যাপারে পদক্ষেপ নিবে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. এবিএম খুরশীদ আলমের সভাপতিত্বে মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের সচিব মো. আব্দুল মান্নান, স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ বিভাগের সচিব মো. আলী নূর, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ডা. কনক কান্তি বড়ুয়া, বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমএ) সভাপতি ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের এমআইএস বিভাগের পরিচালক অধ্যাপক ডা. মিজানুর রহমান প্রমুখ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর

২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত |গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য মন্ত্রনালয়ে নিবন্ধনের জন্য আবেদিত।

সাইট ডিজাইন এস.এম.সাগর-01867-010788