1. bdfocas24@gmail.com : newsroom :
  2. arifahok27@gmail.com : Alifa hok : Alifa hok
  3. newsgopalpur@gmail.com : Rokon zzaman : Rokon zzaman
  4. akmpalash75@gmail.com : Shamsuzzoha Palash : Shamsuzzoha Palash
ক্রাইম পেট্রোল দেখে চুয়াডাঙ্গায় ব্যাংকে ডাকাতির পরিকল্পনা : ৪ ডাকাত আটক - www.bdfocas24.com
সোমবার, ২৬ জুলাই ২০২১, ১০:০৬ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
পেগাসাস আছে বলে মানুষ রাতে নিশ্চিন্তে ঘুমোতে পারে : ইজরায়েলি সংস্থা NSO নেশাগ্রস্থ সন্তানের হাতে মা খুন : র‍্যাব ১৩’র হাতে হত্যাকারী মাদকাসক্ত ছেলে গ্রেফতার দামুড়হুদার কার্পাসডাঙ্গা বাজারে সরকারি খাস জমিতে অবৈধভাবে দোকানঘর নির্মাণ : ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান দামুড়হুদায় অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে গৃহবধূকে ধর্ষণের চেষ্টা ও স্বর্ণালংকার, নগদ টাকা ছিনিয়ে নেওয়ার অভিযোগ দামুড়হুদায় ভ্রাম্যমাণ আদালতে ১৬ টি মামলায় ২৮ জনকে অর্থদন্ড নরসিংদী জেলা যুবলীগের নেতৃত্বে কলকাতার মিথুন সাহা ! সেনাবাহিনীর সহযোগীতায় স্বাস্থ্য বিধি মেনে ভিজিএফ এর চাল বিতরন করলেন পৌর মেয়র বিপ্লব নোয়াখালীর হাতিয়ায় হত্যাসহ ২৪ মামলার আসামি গ্রেফতার সেন্ট্রাল অক্সিজেন সিস্টেম, আইসিইউ, পিসিআর ল্যাব স্থাপনের দাবিতে গাইবান্ধায় নাগরিক মঞ্চের মানববন্ধন অনুষ্ঠিত করোনা : রোগীদের চিকিৎসা দিতে যেয়ে নিজেই আক্রান্ত হলেন, ডাঃ শুভ

ক্রাইম পেট্রোল দেখে চুয়াডাঙ্গায় ব্যাংকে ডাকাতির পরিকল্পনা : ৪ ডাকাত আটক

বিশেষ প্রতিনিধি :
  • আপডেট টাইম: মঙ্গলবার, ১৫ ডিসেম্বর, ২০২০
  • ৪৯৬ বার দেখা
পুলিশ সুপারের প্রেস ব্রিফিং।

পুলিশ সুপারের প্রেস ব্রিফিং।

ক্রাইম পেট্রোল দেখে চুয়াডাঙ্গায় ব্যাংকে ডাকাতির পরিকল্পনা : ৪ ডাকাত আটক: টাকা ও ডাকা‌তি কা‌জে ব‌্যবহৃত অস্ত্র উদ্ধার

চুয়াডাঙ্গার জীবননগর উপজেলার উথলী বাজারে অবস্থিত রাষ্ট্রায়ত্ত সোনালী
ব্যাংক শাখায় ফিল্মি স্টাইলে দুর্ধর্ষ ডাকাতির ঘটনায় চার ডাকাতকে
গ্রেফতার করেছে পুলিশ। পুলিশ জানিয়েছে, ভারতীয় সনি টিভির সিরিয়াল ক্রাইম
পেট্রোল দেখে এই চারজন ব্যাংক লুট করায় উদ্বুদ্ধ হন এবং এজন্য প্রশিক্ষণ
নেন।

গত ১৫ নভেম্বর দুপুর সোয়া ১টার দিকে এই ডাকাতির ঘটনা ঘটে। এর এক মাস পরে
জীবননগর থানা পুলিশ সোমবার (১৪ ডিসেম্বর) দিবাগত রাতে অভিযান চালিয়ে
যশোরের চৌগাছা উপজেলা শহর থেকে ডাকাতির মূলহোতা জীবননগর উপজেলার দেহাটি
গ্রামের সাফাতুজ্জামান রাসেলকে (৩০) গ্রেফতার করে।

পরে একই রাতে ডাকাত দলের অন্য সদস্য জীবননগর উপজেলার দেহাটি গ্রাম থেকে
জাহাঙ্গীর শাহের ছেলে রফি (২৩), মফিজুল শাহের ছেলে মাহফুজ আহম্মেদ আকাশ
(১৯) এবং আখতারুজ্জামান বাচ্চুর ছেলে হৃদয়কে (২২) গ্রেফতার করে পুলিশ।

 

পুলিশের মাঝে আটককৃত ডাকাত সদস্যরা।

পুলিশের মাঝে আটককৃত ডাকাত সদস্যরা।

পুলিশ ডাকাত দলের সদস্যদের স্বীকারোক্তির ভিত্তিতে ব্যাংক থেকে লুট হওয়া
নগদ পাঁচ লাখ ৩ হাজার টাকা এবং ডাকাতির কাজে ব্যবহৃত দুটি খেলনা পিস্তল,
দুটি হেলমেট, দুটি চাপাতি, দুটি মোটরসাইকেল এবং পিপিই উদ্ধার করেছে।

মঙ্গলবার (১৫ ডিসেম্বর) বিকেল ৩টার দিকে জেলা পুলিশের সম্মেলন কক্ষে
প্রেস বিফিংয়ে ডাকাত সদস্য গ্রেফতারসহ লুট হওয়া টাকা উদ্ধারের বিষয়ে
জানান চুয়াডাঙ্গার পুলিশ সুপার (এসপি) মো. জাহিদুল ইসলাম।
পুলিশ সুপার মো. জাহিদুল ইসলাম বলেন, গত ১৫ নভেম্বর চুয়াডাঙ্গার জীবননগর
উপজেলার উথলী বাজারে অবস্থিত রাষ্ট্রায়ত্ত উথলী সোনালী ব্যাংক শাখায়
দুপুর সোয়া ১টার সময় ফিল্মি স্টাইলে দুর্ধর্ষ ডাকাতি সংঘটিত হয়। এ সময়
ডাকাত দল অস্ত্রের মুখে ব্যাংকের নিরাপত্তাপ্রহরীসহ সবাইকে জিম্মি করে
নগদ ৮ লাখ ৮২ হাজার ৯০০ টাকা লুট করে নিয়ে যায়। এ ঘটনার পর পুলিশ
সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে ডাকাতদের গ্রেফতারসহ লুট হওয়া অর্থ উদ্ধারে
অভিযানে নামে। ওই সময় থেকে পুলিশ সন্দেহভাজন বেশ কয়েকজনের ওপর কড়া
নজরদারি শুরু করে। এছাড়া বিভিন্ন প্রযুক্তি ব্যবহার করে তাদের অবস্থান
নিশ্চিতকসহ কথোপকথন রেকর্ড করা হয়। কিন্তু তারা নির্দিষ্ট এক জায়গায়
অবস্থান না করায় তাদের গ্রেফতার করা সম্ভব হচ্ছিল না। সোমবার রাতে তাদের
গ্রেফতার করা হয়।
পুলিশ সুপার আরও জানান, ভারতীয় সনি টিভির সিরিয়াল ক্রাইম পেট্রোল দেখে এই
চারজন ব্যাংক লুট করায় উদ্বুদ্ধ হন। সে অনুযায়ী তারা প্রশিক্ষণ নেন।
পরিকল্পনা অনুযায়ী অনলাইন মার্কেট প্লেস দারাজ থেকে খেলনা পিস্তল সংগ্রহ
করেন।

উ‌ল্লেখ‌্য, গত ১৫ নভেম্বর দিনের বেলায় চুয়াডাঙ্গার জীবননগর উপজেলার উথলী
বাজারে অবস্থিত রাষ্ট্রায়ত্ত উথলী সোনালী ব্যাংক শাখায় দুর্ধর্ষ ডাকাতির
ঘটনা ঘটে। ওইদিন দুপুর সোয়া ১টায় প্রথমে একজন পিপিই ও হেলমেট পরিহিত
অবস্থায় উথলী বাজারে অবস্থিত সোনালী ব্যাংকের ভেতর প্রবেশ করেন। এর এক
মিনিট পর আরও দুজন হেলমেট পরিহিত অবস্থায় ব্যাংকে প্রবেশ করেন। এরপর তারা
তিনজন পিস্তল উঁচিয়ে ব্যাংকের দরজা বন্ধ করে দেন এবং ব্যাংকের
নিরাপত্তাপ্রহরীসহ সবার ফোন নিয়ে নেন। এরপর তারা ব্যাংকের ব্যবস্থাপক ও
নিরাপত্তাকর্মীসহ ওই ব্যাংকে কর্মরত মোট আটজনকে একটি কক্ষের সামনে বসিয়ে
রাখেন।

টাকা লুটের পর ডাকাত দলের সদস্যরা দ্বিতীয় তলা থেকে সিঁড়ি বেয়ে নামার সময়
ব্যাংকের কর্মকর্তারা জরুরি সতর্ক সংকেত (ইমারজেন্সি হুইসেল) বাজান।
সতর্ক সংকেত শুনে ব্যাংকের পার্শ্ববর্তী দোকানদাররা দ্রুত ঘটনাস্থলে ছুটে
আসেন এবং ডাকাত দলকে ধাওয়া করেন। এ সময় ডাকাত দল পিস্তল উঁচিয়ে গুলি করার
হুমকি দিলে দোকানদাররা ছত্রভঙ্গ হয়ে পড়েন এবং চিৎকার শুরু করেন। এ সুযোগে
ডাকাত দল মোটরসাইকেলযোগে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্ট করে।
পালিয়ে যাওয়ার সময় ডাকাত দল উথলী সূর্যতোরণ ক্লাবের সামনে গেলে আবার
বাধার মুখে পড়ে। ওখানে দাঁড়িয়ে থাকা আরিফুর রহমান মন্টুসহ ৫-৬ জন
মোটরসাইকেল লক্ষ্য করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করলে একটা ইট ডাকাত দলের হেলমেটে
লাগে। খবর পেয়ে উথলী বিশেষ ক্যাম্পের বিজিবি ও জীবননগর থানা পুলিশের
সদস্যরা ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে ডাকাত দলের ফেলে যাওয়া পিস্তলের অংশ বিশেষ
উদ্ধার করে।

ঘটনার পর খুলনা বিভাগের অতিরিক্ত উপমহাপরিদর্শক (অতিরিক্ত ডিআইজি) মো.
নাহিদুল ইসলাম, চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসক নজরুল ইসলাম সরকার, চুয়াডাঙ্গা
পুলিশ সুপার মো. জাহিদুল ইসলাম, জীবননগর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হাজী
মো. হাফিজুর রহমান, জীবননগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এসএম মুনিল লিংকন,
চুয়াডাঙ্গা জেলা পুলিশের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (দামুড়হুদা সার্কেল)
আবু রাসেল, জাতীয় নিরাপত্তা গোয়েন্দা সংস্থার (এনএসআই) উপপরিচালক জিএম
জামিল সিদ্দিক, সোনালী ব্যাংকের ফরিদপুর জিএম অফিসের জেনারেল ম্যানেজার
(ইনচার্জ) খোকন চন্দ্র বিশ্বাস, জীবননগর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত
কর্মকর্তা মো. সাইফুল ইসলামসহ র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব),
ডিজিএফআই, ডিএসবি ও সিআইডির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন
করেন।

এ ঘটনার পর রাতেই ব্যাংকের ব্যবস্থাপক মো. আবু বক্কর সিদ্দিক বাদী
হয়ে জীবননগর থানায় অজ্ঞাত তিনজনকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেন।
পরে পুলিশের খুলনা বিভাগের অতিরিক্ত উপ-মহাপরিদর্শক (অতিরিক্ত ডিআইজি)
মো. নাহিদুল ইসলাম ঘটনাস্থল পরিদর্শনে এসে সাংবাদিকদেরকে বলেন, ব্যাংক
চালানোর জন্য এ ভবন মোটেও উপযুক্ত নয়। এ ঘটনা আমাদের জন্য অনাকাঙ্ক্ষিত।
আমার ধারণা, এ জেলার মধ্যেই অপরাধীদের অবস্থান। আমরা আশাবাদী অল্প সময়ের
মধ্যে আসামি ধরতে পারব।
তিনি আরও বলেন, ব্যাংক কর্তৃপক্ষের চরম গাফিলতি আছে। ব্যাংকের মতো একটি
আর্থিক প্রতিষ্ঠানে একটা সিসি ক্যামেরাও নেই বর্তমান যুগে এটা ভাবা যায়
না।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর

২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত |গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য মন্ত্রনালয়ে নিবন্ধনের জন্য আবেদিত।

সাইট ডিজাইন এস.এম.সাগর-01867-010788