1. bdfocas24@gmail.com : admin :
  2. newsgopalpur@gmail.com : Rokon zzaman : Rokon zzaman
  3. shafayet.news247@gmail.com : Safayet Ullah : Safayet Ullah
  4. akmpalash75@gmail.com : Shamsuzzoha Palash : Shamsuzzoha Palash
মঙ্গলবার, ০২ মার্চ ২০২১, ০৭:২১ অপরাহ্ন

বাবার মৃত্যুশোক বুকে নিয়ে খুলনার জয়ের নায়ক শহীদুল

অনলাইন ডেস্কঃ
  • আপডেট টাইম: শুক্রবার, ১৮ ডিসেম্বর, ২০২০
  • ১১৫ বার দেখা

বঙ্গবন্ধু টি-টোয়ন্টি কাপে তিনি এমন একটা দলে খেলার সুযোগ পেয়েছিলেন, যে দলে আছেন বড় বড় সব তারকা। এটা যেমন শেখার দারুণ এক সুযোগ, তেমনি সুযোগ কিছু করে দেখানোর। জেমকন খুলনার পেসার শহীদুল ইসলাম সেটাই করে দেখালেন। শেষ ওভারে বোলিং করার চাপ সামলে তিনি খুলনাকে চ্যাম্পিয়ন করেছেন। অথচ মাত্র ৫ দিন আগে তার বাবা মারা গিয়েছেন। বাবার মৃত্যুশোক সামলে শহীদুল হয়ে উঠলেন খুলনার জয়ের নায়ক।

আজকের ফাইনালে জয়ের জন্য গাজী গ্রুপ চট্টগ্রামের প্রয়োজন ছিল শেষ ৬ বলে ১৬ রান। খুলনা অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ বল তুলে দিলেন শহীদুলের হাতে। অথচ ২ ওভারে মাত্র ৮ রান দেওয়া হাড়কিপ্টে শুভাগত হোম কিংবা ২ ওভারে ১৮ রান দেওয়া আরিফুল হক ছিলেন। শহীদুল প্রচণ্ড চাপ নিয়ে অধিনায়কের আস্থার প্রতিদান দিয়েছেন। শেষ ওভারে তিনি দিয়েছেন ১০ রান। উইকেট নিয়েছেন ২টি। তার আঁটসাট বোলিংয়ের কল্যাণেই ৫ রানের দারুণ জয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে খুলনা।

শেষ ওভারের প্রথম বলে ১ রান নেন সৈকত আলী। পরের বলে মোসাদ্দেক নেন ২ রান। তৃতীয় বলেই শুভাগত হোমের তালুবন্দি হয়ে ফিরেন ১৪ বলে ১টি করে চার-ছক্কায় ১৯ রান করা মোসাদ্দেক। পরের বলে আবারও উইকেট। শহীদুলের বলে ক্লিন বোল্ড হয়ে যান ৪৫ বলে ৪ ছক্কায় ৫৩ রানের চমৎকার ইনিংস উপহার দেওয়া সৈকত আলী। তবে শহীদুলের হ্যাটট্রিক আর হয়নি। শেষ বলে প্রয়োজন ছিল ১২ রান। নো বল না হলে যার হিসেব মেলানো বলতে গেলে অসম্ভব। শেষ বলে নাহিদুল ইসলাম বিশাল একটা ছক্কা হাঁকালে চট্টগ্রামের পরাজয়ের ব্যবধান কমে আসে।

অথচ গত ১৩ ডিসেম্বর রাতে জেমকন খুলনার পেসার শহীদুল ইসলামের বাবা মারা যান। খবর পেয়ে সেই রাতেই জৈব সুরক্ষা বলয় ভেঙে হোটেল ছেড়ে নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে নিজেদের বাড়িতে চলে যান শহীদুল। বাবার মৃত্যুশোক বুকে নিয়েই ফাইনালের আগে আবার তিনি দলের সঙ্গে যোগ দেন। গত বুধবার তিনি নিজেই খুলনার টিম ম্যানেজমেন্টের সঙ্গে যোগাযোগ করে ম্যাচ খেলার আগ্রহ প্রকাশ করেন। টিম ম্যানেজমেন্টও তার কথায় সাড়া দিয়ে করোনা টেস্টে করিয়ে দলের সঙ্গে যুক্ত করে।

বাবাকে হারানোর পর শহীদুল বলেছিলেন, ‘বাবাকে হারিয়েছি, এই শোক তো আর ভোলা যাবে না। আমি বিশ্বাস করি, বাবা আমাকে খেলতে দেখলেই খুশি হবেন।’ শহীদুল কথা রেখেছেন। মাঠের খেলাতেই দেখিয়েছেন কীভাবে শোককে শক্তিতে পরিণত করতে হয়। তাই পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে সাবেক টাইগার ক্যাপ্টেন মাশরাফি বিন মুর্তজা বলেছেন, ‘কয়দিন আগে ওর বাবা মারা গেছেন। অমন এক শোক ভুলে এভাবে পারফরম্যান্স করাটা অনেক কঠিন। আমরা আসলে ওর জন্যই ম্যাচটি জিতেছি।

সূত্রঃ কালের কণ্ঠ

শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর

পুরাতন সংবাদ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১  

http://www.bdallbanglanewspaper.com/

আজকের দিন-তারিখ

  • মঙ্গলবার (সন্ধ্যা ৭:২১)
  • ২রা মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
  • ১৮ই রজব, ১৪৪২ হিজরি
  • ১৭ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ (বসন্তকাল)

২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত |গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য মন্ত্রনালয়ে নিবন্ধনের জন্য আবেদিত।

 
সাইট ডিজাইন এস.এম.সাগর-01867-010788